Sports

বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজে প্রথমবারের মতো MEE প্রোটোকল ব্যবহার করা হবে

এই MEE প্রোটোকলের ফলে ক্রিকেটাররা আগের থেকে কিছুটা স্বস্তি পাবেন। কোভিড-১৯ টেস্টে যদি কারও নেগেটিভ আসে, তবে সে স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারে, যা বায়ো-বাবলে সম্ভব ছিল না।

বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজে প্রথমবারের মতো MEE প্রোটোকল ব্যবহার করা হবে

এই MEE প্রোটোকলের ফলে ক্রিকেটাররা আগের থেকে কিছুটা স্বস্তি পাবেন। কোভিড-১৯ টেস্টে যদি কারও নেগেটিভ আসে, তবে সে স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারে, যা বায়ো-বাবলে সম্ভব ছিল না।

আসন্ন বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজে প্রথমবারের মতো ম্যানেজড ইভেন্ট এনভায়রনমেন্ট (এমইই) প্রোটোকল ব্যবহার করা হবে, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) একজন শীর্ষ কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন।আইসিসি সম্প্রতি এই MEE গ্রহণ করেছে, যা বিদ্যমান বায়ো-বাবল প্রতিস্থাপন করবে। এই MEE প্রোটোকলের ফলে ক্রিকেটাররা আগের থেকে কিছুটা স্বস্তি পাবেন। কোভিড-১৯ টেস্টে যদি কারও নেগেটিভ আসে, তবে সে স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারে, যা বায়ো-বাবলে সম্ভব ছিল না।

“বায়ো-বাবল ক্রিকেটারদের উপর অনেক চাপ সৃষ্টি করত। এটি একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। এজন্য আইসিসি এমইই প্রোটোকল গ্রহণ করেছে। এটি প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ ও পাকিস্তান সিরিজে ব্যবহার করা হবে,”  আজ এখানে বিসিবির চিকিৎসা বিভাগের একজন চিকিৎসক ডা.মঞ্জুর হোসেন, “এর ফলে ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফদের আর আগের মতো নিষেধাজ্ঞার সম্মুখীন হতে হবে না। তারা মুক্তভাবে ঘুরে বেড়াতে পারবে। দলটি হোটেল, সুইমিং পুল, জিমনেসিয়াম, ইনডোর, বিসিবি একাডেমি এবং মাঠে ঘুরে বেড়াতে পারবে। তারা যেমন চায়, “তিনি যোগ করেছেন।

২০২০ সালের মার্চ থেকে, বিশ্বব্যাপী কোভিড -১৯ প্রাদুর্ভাবের পরে ক্রিকেট মাঠে ফিরে আসার চেষ্টা করায় ক্রিকেটার, কোচ এবং সহায়তা কর্মীদের জীবন একটি জৈব বুদ্বুদে আটকে গেছে। এ সময় তাদের নির্ধারিত স্থানের বাইরে চলাচলের কোনো সুযোগ ছিল না। রুম কোয়ারেন্টাইন দিনের পর দিন করা বাধ্যতামূলক ছিল।

বায়ো-বাবলে থাকাকালীন শুধুমাত্র সাপোর্ট স্টাফ এবং ম্যাচ অফিসিয়ালরা খেলোয়াড়দের সংস্পর্শে আসতে পারেন। ফলে বাইরের কোনো ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে পারেননি খেলোয়াড়রা। শুধু তাই নয়, বায়ো-বাবলেও তাদের নিয়মিত পরীক্ষা করা হয়। জায়গায় বায়ো-বাবল থাকায় শুধু খেলোয়াড় ও সাপোর্ট স্টাফ নয়, গ্রাউন্ডসম্যান ও হোটেল কর্মীদেরও নিয়ম মেনে চলতে হবে।

এবার কোভিড-১৯ টেস্টেও শিথিলতা আসছে। ছয় দিনের ব্যবধানে প্রতিবার পরীক্ষা দিতে হবে দুই দলের সদস্যদের। এছাড়াও, সহায়তা কর্মীদের জন্য দুই ডোজ ভ্যাকসিন নেওয়া কঠোরভাবে বাধ্যতামূলক। ওই ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট দেখালেই মাঠে ঢুকতে দেওয়া হবে।

আজ সকালে বাংলাদেশে পৌঁছেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। কোভিড-১৯ পরীক্ষার ফলাফল না পাওয়া পর্যন্ত তারা রুম কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন। এরপর অনুশীলন ও চলাফেরা করতে আর কোনো বাধা নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button