৪৩তম বিসিএস প্রিলিমিনারি রেজাল্ট ২০২১ – ৪৩ তম বিসিএস প্রিলি ফলাফল ২০২১

আজ বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন ৪৩তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেছে। 2021 সালের 1 আগস্ট এই বিষয়ে তারা একটি বৈঠক করেন। ওই দিন 43তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফল নিয়ে আলোচনা হয়। প্রায় চার মাসের ব্যবধানে একটি প্রাথমিক এম সি কিউ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে ৪৩তম বিসিএস পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে বিপিএসসি কর্তৃপক্ষ। বিগত বছরের মতো এ বছরও বিপিএসসি তাদের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেছে অর্থাৎ ৪১তম বিসিএস এমসিকিউ প্রিলিমিনারি পরীক্ষার অনলাইন ও অফলাইনে। অনলাইনে তারা bpsc.gov.bd ওয়েবসাইটে পিডিএফ ফরম্যাটে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছে। এবং অফলাইন ফলাফলের জন্য, প্রার্থীকে নিম্নলিখিত বিন্যাসে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে একটি এসএমএস পাঠাতে হবে। আপনি যদি একজন বিসিএস পরীক্ষার্থী হন এবং ফলাফল আশা করেন, তাহলে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করে আপনি আপনার কাঙ্খিত ফলাফল পেতে পারেন।

 

৪৩তম বিসিএস প্রিলিমিনারি রেজাল্ট কিভাবে চেক করবেন

আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে ৪৩তম বিসিএস পরীক্ষার ফলাফলের অফলাইন ছবি এবং পিডিএফ ফাইল নিয়ে আসছি। আপনি এখান থেকে ফটো বা পিডিএফ ফাইলের মাধ্যমে আপনার ফলাফল দেখতে পারেন। বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ২৯ অক্টোবর ২০২১ তারিখে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বহু প্রতীক্ষিত ফলাফল আজ BPSC দ্বারা প্রকাশিত হয়েছে। BPSC MCQ ফলাফল BPSC পরীক্ষার ফলাফল বা নোটিশবোর্ড বিভাগে অনলাইনে প্রকাশ করা হবে। প্রার্থীরা তাদের রোল অনুসন্ধান করে তাদের ফলাফল দেখতে পারেন। এছাড়াও তারা bpsc.gov.bd ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারবেন এবং সেখান থেকে তাদের ফলাফল ও পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড করতে পারবেন। ৪৩তম বিসিএস প্রিলিমিনারিতে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের পরবর্তী লিখিত পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত করা হবে। লিখিত পরীক্ষার তারিখ খুব শিগগিরই ঘোষণা করা হবে।

৪৩তম বিসিএস পরীক্ষার বিস্তারিত

 

প্রিলিমিনারি পরীক্ষার তারিখ: ২৯ অক্টোবর

প্রাথমিক অ্যাডমিটকার্ড ডাউনলোডের তারিখ:

লিখিত পরীক্ষার তারিখ:

মোট প্রার্থী: ৪,২৪,৪০০ জন

শূন্য পদ: ১,৮১৪টি

 

৪৩ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার সময়সূচী ২০২১

৪৩ তম বিসিএসের সিট প্ল্যান প্রকাশের তারিখ ১৭ অক্টোবর নির্ধারণ করা হয়েছে অর্থাৎ আপনি ১৭ অক্টোবর থেকে এটি দেখতে সক্ষম হবেন এবং আপনাকে অবশ্যই পরীক্ষার আগে ভর্তির ফর্ম ডাউনলোড করতে হবে। নির্ধারিত তারিখের আগে আপনাকে এন্ট্রি ফর্ম ডাউনলোড করতে হবে। আপনি আমাদের সাইট থেকে এন্ট্রি ফর্ম ডাউনলোড করার লিঙ্ক পাবেন। এখানে আপনি কখন এন্ট্রি ফর্ম ডাউনলোড করতে হবে তার নির্দেশাবলী পাবেন এবং এন্ট্রি ফর্ম ডাউনলোড করার পরে পরীক্ষার হলে যাওয়ার আগে কী করতে হবে সে সম্পর্কে একটি ভাল ধারণা পাবেন।

সম্পূর্ণ বিসিএস ফলাফল পিডিএফ ডাউনলোড করুন এখান থেকে

 

৪৩ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি রেজাল্ট কিভাবে পাবেন

বিসিএস ফলাফল তিনভাবে পাওয়া যায়। নিচের অংশ থেকে আপনি তিনটি উপায় সম্পর্কে জানতে পারবেন।

পদ্ধতি 1
যেকোনো ব্রাউজার খুলে www.bpsc.gov.bd টাইপ করুন।
অনলাইন নিবন্ধন / ফলাফল বিভাগ থেকে বিসিএস পরীক্ষার বিকল্পটি নির্বাচন করুন
সেখান থেকে ৪৩তম বিসিএস প্রিলিমিনারিতে ট্যাপ করে একটি পিডিএফ ফাইল পাওয়া যাবে।
পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড করুন আপনার রেজিস্ট্রেশন নম্বর অনুযায়ী পিডিএফ থেকে ফলাফল পরীক্ষা করুন

পদ্ধতি 2
যেকোনো ব্রাউজার খুলে 103.230.104.194 লিখুন
সেখান থেকে বিসিএস পরীক্ষা বেছে নিতে হবে
এখন আপনি বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফলের বিজ্ঞপ্তি দেখতে পারেন
ফলাফল ডাউনলোড করুন

৪৩তম বিসিএস প্রিলিমিনারি ফলাফল এসএমএসের মাধ্যমে

ফলাফল পেতে কমিশনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট www.bpsc.gov.bd এবং টেলিটকের ওয়েবসাইট http://bpsc.teletalk.com.bd-এ ফলাফল পাওয়া যাবে। তাছাড়া টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের মাধ্যমে যেকোনো মোবাইল থেকে এসএমএস করে ৪৩তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফল জানা যাবে।

এসএমএস পদ্ধতি বিন্যাস:

PSC <SPACE> 43 <SPACE> রেজিস্ট্রেশন নম্বর 16222 এ পাঠাতে হবে।

ফিরতি বার্তায়, রেজিস্ট্রেশন নম্বর সহ যোগ্য বা অযোগ্য হিসাবে ফলাফল পাওয়া যাবে

উদাহরণ: PSC 43 123456 পাঠান 16222 নম্বরে

৪৩ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি ফলাফল দেখুন লিঙ্ক ২০২১

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস বা বাংলাদেশ কর্ম কমিশন যা (বিসিএস) নামে বেশি পরিচিত, হল বাংলাদেশ সরকারের সিভিল সার্ভিস। মূলত বিসিএস বা বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস শব্দটি এসেছে পাকিস্তানের তৎকালীন সেন্ট্রাল সুপিরিয়র সার্ভিস থেকে যা আবার ভারতীয় উপমহাদেশে ব্রিটিশ সাম্রাজ্য নিয়ন্ত্রিত ভারতীয় সিভিল সার্ভিস থেকে এসেছে। পরবর্তীতে, 1971 সালের যুদ্ধের পর, এটি সিভিল সার্ভিস অধ্যাদেশ দ্বারা বাংলাদেশের সিভিল সার্ভিস হিসাবে পরিচিত হয়। BCS এর নীতিমালা বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। দেশে মোট ২৬টি ক্যাডার রয়েছে।

 

Final-Press-realise-preli-43-BCS-01

Final-Press-realise-preli-43-BCS-02

Final-Press-realise-preli-43-BCS-03

বিসিএস এর ইতিহাস

সেই সময়ে, ভারতীয় উপমহাদেশ ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিস (ICS) দ্বারা শাসিত ছিল এবং বেশিরভাগ ICS অফিসার ছিলেন ব্রিটিশ। 1947 সালে ভারত ও পাকিস্তান বিভক্ত হওয়ার পর পাকিস্তানে সেন্ট্রাল সুপিরিয়র সার্ভিসেস অব পাকিস্তান গঠিত হয়। ১৯৭১ সালের যুদ্ধ-পরবর্তী সময়ে, তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আইন দ্বারা নবগঠিত রাষ্ট্রের সরকার ব্যবস্থার বিকাশের জন্য বিসিএস বা বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস তৈরি করেন।

 

ক্যাডার সংখ্যা

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের অধীনে ১৪টি সাধারণ এবং ১৪টি পেশাদার/প্রযুক্তিগত ক্যাডার রয়েছে।

সাধারণ ক্যাডার:

1) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রশাসন)

2) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (আনসার)

3) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (অডিট এবং অ্যাকাউন্টিং)

4) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (সমবায়)

5) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (আবগারি ও কাস্টমস)

6) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (পরিবার পরিকল্পনা)

6) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (খাদ্য)

6) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিদেশী)

9) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (তথ্য)

10) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (পুলিশ)

11) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (পোস্ট)

12) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (রেলওয়ে পরিবহন ও বাণিজ্যিক)

13) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (ট্যাক্স)

14) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বাণিজ্য)

 

পেশাগত ক্যাডার:

1) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (সড়ক ও মহাসড়ক)

2) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (পাবলিক ওয়ার্কস)

3) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (পাবলিক হেলথ ইঞ্জিনিয়ারিং)

4) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বন)

5) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (স্বাস্থ্য)

6) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (রেলওয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং)

6) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রাণীসম্পদ)

6) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (মৎস্য)

9) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (পরিসংখ্যান)

10) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (কারিগরি শিক্ষা)

11) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (কৃষি)

12) বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (সাধারণ শিক্ষক)

বিসিএস পরীক্ষা ও এর নিয়ম

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা বা বিসিএস পরীক্ষা হল বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিসের অধীনে দেশের ২৬টি ক্যাডারে কর্মী নিয়োগের জন্য সারাদেশে পরিচালিত একটি প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা। আগে ২৬টি ক্যাডার থাকলেও ২০১৬ সালে ইকোনমিক ক্যাডারকে প্রশাসন ক্যাডারের আওতায় আনা হয় এবং এখন বাংলাদেশে ২৬টি ক্যাডার রয়েছে।

বিসিএস পরীক্ষা সাধারণত তিন ধাপে সম্পন্ন হয়।

প্রথমত, প্রাথমিক পরীক্ষা বা (MCQ),
তারপর হয় একটি লিখিত পরীক্ষা এবং
শেষ হয় চূড়ান্ত পরীক্ষা বা মৌখিক পরীক্ষা।

বিসিএস পরীক্ষাকে বাংলাদেশে চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সবচেয়ে বড় পরীক্ষা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। প্রতিটি প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় প্রায় সাড়ে তিন লাখ থেকে চার লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করে যা দেশের মোট চাকরিপ্রার্থীদের প্রায় নব্বই শতাংশ।

প্রিলিমিনারি পরীক্ষা: এটি বিসিএস পরীক্ষার প্রাথমিক পর্যায় বা যোগ্যতা বাছাই পর্যায়। প্রতি বছর মে-জুন মাসে পরীক্ষা হয়। পরীক্ষার এক মাস আগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয় এবং ফলাফল এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে দেওয়া হয়।

লিখিত পরীক্ষা: এটি বিসিএসের মূল পরীক্ষা যা প্রতি বছর অক্টোবর, নভেম্বর বা ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষার জন্য বিজ্ঞপ্তিটি প্রায় এক মাস আগে প্রকাশিত হয় এবং ফলাফল সাধারণত পরীক্ষার দুই থেকে তিন মাস পরে প্রকাশিত হয়।

মৌখিক পরীক্ষা: লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষার আড়াই মাস পর বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হয়।

বিসিএস পরীক্ষার যোগ্যতা: উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার পর চার বছরের অনার্স বা অনার্স কোর্স সম্পন্ন করা যেকোনো শিক্ষার্থী বিসিএস পরীক্ষার জন্য যোগ্য। তবে, কেউ যদি তিন বছরের অনার্স বা পাস কোর্সে থাকে তবে তাকে অবশ্যই মাস্টার্স করতে হবে। শিক্ষাজীবনে এক-তৃতীয়াংশের বেশি বিভাগ থাকলে তিনি বিসিএস পরীক্ষার যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন না।

বিসিএস পরীক্ষা এবং পরীক্ষার বিষয়

 

ক) প্রিলিমিনারি পরীক্ষা: প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় দশটি বিষয়ে 200টি বাজার ব্যক্তিগত পরীক্ষা রয়েছে যার সময়কাল 2 ঘন্টা। মোট 200টি বিষয়ভিত্তিক প্রশ্ন রয়েছে যার প্রতিটির মান 1। আবার প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য 0.5 নম্বর কাটা যাবে। যে দশটি বিষয় পরীক্ষা করা হয় এবং তাদের মান বিতরণ নীচে দেওয়া হল।

1) বাংলা ভাষা ও সাহিত্য – 35 টি

2) ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য – 35 টি

3) বাংলাদেশ অ্যাফেয়ার্স – 30

4) আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী – 20 টি

5) ভূগোল, পরিবেশ এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা – 10

6) সাধারণ বিজ্ঞান – 15 টি
6) কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি – 15 টি
6) গাণিতিক যুক্তি – 15
9) মানসিক দক্ষতা – 15 টি
10) নৈতিকতা, মূল্যবোধ এবং সুশাসন – 10

খ) লিখিত পরীক্ষা: বিসিএস পরীক্ষার মূল যাত্রা শুরু হয় লিখিত পরীক্ষা থেকে। 900 নম্বরের এই পরীক্ষায় একজন প্রার্থী বাংলা বা ইংরেজি যেকোনো ভাষায় উত্তর দিতে পারবেন। তবে লিখিত পরীক্ষার সংখ্যা ভাষার উপর নির্ভর করে না। একজন প্রার্থীর লেখার মানের উপর নির্ভর করে। সাধারণ ক্যাডার ও প্রফেশনাল ক্যাডারের পরীক্ষার বিষয় ভিন্ন

সাধারণ ক্যাডার বিষয়ভিত্তিক নম্বর বণ্টন
1) বাংলা- 200
2) ইংরেজি- 200
3) বাংলাদেশ অ্যাফেয়ার্স – 200
4) আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী – 100 টি
5) গাণিতিক যুক্তি এবং মানসিক দক্ষতা – 100
6) সাধারণ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি –  100
পেশাগত ক্যাডারের বিষয় বণ্টন
1) বাংলা – 100
2) ইংরেজি – 200
3) বাংলাদেশ অ্যাফেয়ার্স – 200
4) আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী – 100
5) গাণিতিক যুক্তি এবং মানসিক দক্ষতা – 100
6) পোস্ট-সম্পর্কিত সমস্যা –  200

 

একজন প্রার্থী চাইলে দুইজন ক্যাডার এই পরীক্ষা দিতে পারবেন, তবে সেক্ষেত্রে সাধারণ ক্যাডারের পরীক্ষা দেওয়ার পর তাকে ওই পদের সংশ্লিষ্ট বিষয়ের অতিরিক্ত ২০০ নম্বরের পরীক্ষা দিতে হবে। অন্য কথায়, তাকে মোট 1100 নম্বর দিতে হবে। উভয় ক্ষেত্রেই পাস নম্বর 50%।

গ) মৌখিক পরীক্ষা: লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরাই মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। মৌখিক পরীক্ষায় 50% পাস নম্বর সহ 200 নম্বর থাকে।

বিসিএস ভাইভা বোর্ড কিভাবে গঠিত হয়

বিসিএস লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের উপযুক্ততা নির্ধারণের জন্য নিম্নরূপ মৌখিক পরীক্ষা বোর্ড গঠন করা হয়েছে।
1) সভাপতি

কমিশনের একজন বা সদস্য – বোর্ডের চেয়ারম্যান।

2) সরকার কর্তৃক মনোনীত যুগ্ম সচিব বা উচ্চ পদমর্যাদার কর্মকর্তা। বোর্ড সদস্য

3) কমিশন কর্তৃক মনোনীত বিষয়ভিত্তিক বিশেষজ্ঞ। বোর্ড সদস্য

ভাইভা বোর্ড এই এক বা একাধিক সদস্য নিয়ে গঠিত। সাধারণত, 15 টি ভাইভা বোর্ড গঠিত হয়।
মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের ক্যাডারে সুপারিশ করা হয়।

একটি ক্যাডার চূড়ান্তভাবে নিয়োগের আগে স্বাস্থ্য পরীক্ষা, পুলিশ যাচাইকরণ এবং NSI (ন্যাশনাল সিকিউরিটি ইন্টেলিজেন্স) যাচাইয়ের মধ্য দিয়ে যায়।

বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কিন্তু ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত না হওয়া প্রার্থীদের দুই ধরনের নন-ক্যাডারে চাকরি দেওয়া হয়।

1) সাধারণ
2) প্রযুক্তিগত

Check Also

অনার্স ২য় বর্ষ মার্কশিট ডাউনলোড ২০২২ অনার্স ২য় বর্ষ রেজাল্ট ২০২২

National University Honours 2nd Year Result 2022 . National University Honours 2nd Year Result 2022 …

Leave a Reply

Your email address will not be published.