Mobile Banking

 নগদ একাউন্ট এর সুবিধা সমূহ [ক্যাশ আউট চার্জ ৯.৯৯?]

নগদ একাউন্টের সুবিধা ২০২২ কি? বাংলাদেশ মোবাইল ব্যাংকিং সেবার অগ্রদূত হিসেবে আগমন ঘটেছিলো বিকাশের। বিকাশ, শিওর ক্যাশ, রকেট পরবর্তী নতুন মোবাইল ব্যাংকিং সেবা হিসেবে চালু হয় নগদ। বাংলাদেশ ডাক বিভাগের পরিচালিত নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবার বর্তমানে গ্রাহকদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে।

nagad-pavilion-ditf-061220-01

শুধু তাই নয় ক্যাশ আউট খরচও কম। নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সঞ্চয় হার দেয়ার দিক দিয়ে অনেক মোবাইল ব্যাংকিং সেবা থেকে অনেকটা এগিয়ে আছে।
তবে সার্বিক বিবেচনায় দেখা যায় অল্প সময়ে গ্রাহকের মন জয় করতে পেরেছে এবং বিকাশ এর কাছাকাছি পৌঁছে যেতে খুব বেশি সময়ের প্রয়োজন হবেনা । এর মূল কারণ হচ্ছে এর ক্যাশ আউট খরচ কম এবং অন্যান্য সুযোগ সুবিধা।
নগদের সুবিধার কথা বলতে হলে প্রথমেই চলে আসে –

১. ক্যাশ আউট চার্জের কথা ,

২. সেন্ড মানি খরচ এবং

৩. নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সঞ্চয় হার বিষয়ে।

একটি কথা বলা জরুরি বর্তমানে নগদ একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে কোথাও যেতে হবে না। আপনি নিজ মোবাইল থেকে *১৬৭# ডায়েল করে নিজেই খুব সহজেই আপনার নগদ একাউন্টটি খুলতে পারবেন।

 

নগদ এর ক্যাশ আউট চার্জ 

নগদ এর ক্যাশ আউট চার্জ :- নগদের ক্যাশ আউট চার্জ নিয়ে অনেক গ্রাহকদের মধ্যে দ্বিধা দ্বন্দ্ব রয়েছে। আজকের পর এই বিষয়ে আর কোনও দ্বিধা-দ্বন্দ্ব থাকবে না। কেননা এই পোস্টে আপনি নগদ ক্যাশ আউট চার্জ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন।
নগদ অফিশিয়ালি সর্বনিম্ন ক্যাশ আউট চার্জ হাজারে ৯ টাকা বলে প্রচার করা হয়।
তবে মূলত নগদ এজেন্ট পয়েন্টে গেলে তার ব্যতিক্রম কথা শোনা যায়।
কিভাবে আপনি নগদে হাজারে ৯ টাকা ক্যাশ আউট করতে পারবেন এ সকল বিষয় এখন আপনি পরিষ্কারভাবে জানতে পারবে।
নগদ ইউএসএসডি কোড *১৬৭# ডায়াল করে নগদে ক্যাশ আউট চার্জ বর্তমানে ১৪ টাকা ৫০ পয়সা প্রতি হাজারে।

images

এখন আপনি যদি নগদ উদ্যোক্তা পয়েন্টে প্রশ্ন করেন হাজারে কত টাকা খরচ। তারা আপনাকে সঠিকভাবে উত্তর দিতে পারবে না,  কেননা নগদ উদ্যোক্তা পয়েন্ট আপনার কাছ থেকে কোনো ধরনের চার্জ কর্তন করে না।
উদ্যোক্তা পয়েন্ট থেকে সাধারণত আপনি যে পরিমাণ টাকা তাদেরকে দিবেন তারা ঐ পরিমান টাকা আপনার প্রদান করা নম্বরে ক্যাশ ইন করে দিবে।এখানে তারা আপনার কাছ থেকে কোন চার্জ করবে না।
এখানে খরচের বিষয়টা নির্ভর করছে নগদ একাউন্ট থেকে কিভাবে টাকা উত্তোলন করছেন তার উপর। টাকাটা আপনি যে নাম্বারে পাঠাচ্ছেন ওই গ্রাহক কিভাবে টাকাটা উত্তোলন করছেন তার উপর।
ওই গ্রাহক যদি নগদ অ্যাপস ব্যবহার করেন তবে তার খরচ হবে 9 টাকা 99 পয়সা। সাথে রয়েছে ভ্যা ট ১.৪৯ পয়সা। তাহলে মোট খরচ ১১.৪৯ টাকা।

অন্যদিকে ওই গ্রাহকের যদি নগদ অ্যাপস না থাকে উনি যদি ম্যানুয়ালি টাকা ক্যাশ আউট করেন তবে তার খরচ হবে ১৪ টাকা ৯৪ পয়সা, বা ১৫ টাকা প্রায়।

ধরুন ওই গ্রাহক যদি নগদ অ্যাপস ব্যবহার  না করে।তবে আপনাকে ওই  নগদ গ্রাহকের হিসাবে ১৫ টাকা হাজার খরচ হিসাবে ক্যাশ ইন করে দেন। ব্যস আপনার সমস্যার সমাধান হয়ে গেল।

নগদ একাউন্টের সুবিধা ২০২২ এ সেরা সুবিধা গুলর মধ্যে এটা অন্যতম।

 

নগদে সেন্ড মানি ফ্রি

নগদ একাউন্ট এর সকল নাম্বারে সেন্ড মানি অ্যাপস এর মাধ্যমে ফ্রি। তাই আপনি যত খুশি সেন্ড মানি করতে পারেন ফ্রিতে । যেখানে অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং খরচ লাগে ৫ থেকে ১০ টাকা।

 

নগদে Add money করার সুবিধা

বিকাশ ২০১৯ সালে প্রথম অ্যাড মানি সুবিধা নিয়ে আসে। অনেকের ব্যাংকে টাকা কিন্তু ওই টাকা বের করতে এটিএম অথবা ব্যাংক ব্রাঞ্চে যেতে হয়।
অনেকে অনেক সময় ঘর থেকে বাইরে যেতে চান না, অথচ টাকা প্রয়োজন আছে । তাদের জন্য অ্যাড মানি সুবিধা ভালো।
এই সুবিধাটি এখন আপনি আপনার নগদ মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট থেকেও পাচ্ছেন

images

বলে রাখা ভাল Add money  সুবিধা চালু করলেও এখনো খুব অল্পসংখ্যক ব্যাংক থেকেই নগদে টাকা আনা যায়।  তবে সামনের দিকে আরো বেশি ব্যাংক যুক্ত হবে বলে মনে করা হচ্ছে।
প্রায় প্রতিটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মত নগদ একাউন্টে ব্যাংক থেকে

Add money ফ্রি।

নগদ একাউন্টের মোবাইল রিচার্জ

মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবহার করছেন অথচ মোবাইল ব্যাংকিং থেকে মোবাইল রিচার্জ করছেন না এমন গ্রাহকের সংখ্যা এখন অনেক কম।

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবায় এখন রিচার্জে ক্যাশব্যাক অফার পাচ্ছেন। নগদ মোবাইল রিচার্জ ক্যাশব্যাক অফার নিয়ে আলোচনা করা হবে।

তবে আপনি অন্য মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মত এখানেও আপনি নিজের নাম্বারে মোবাইল রিচার্জ করতে পারবেন সহজেই।

নগদ একাউন্টের মুনাফা

বাংলাদেশের মোবাইল ব্যাংকিং সেবায় নগদ প্রথম কোন মোবাইল ব্যাংকিং সেবা, যে সেবায় আপনি আপনার মোবাইল ব্যাংকিং হিসাবে টাকা রাখলে মুনাফা বা লাভ পাচ্ছেন।
এক্ষেত্রে মুনাফা পেতে হলে অবশ্যই আপনাকে একাউন্ট করার শুরুতেই অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে।

নগদ মুনাফা পাওয়ার পদ্ধতি হচ্ছে আপনার একাউন্টে টাকা জমা রাখতে হবে।
নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকার উপরেই মাসিক হারে. বাৎসরিক একটি নির্দিষ্ট পরিমান মুনাফা পাবেন নগদ গ্রাহক।
নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সঞ্চয় হার
নিজের ব্যক্তিগত নগদ মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্টে টাকা রেখে আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণ মুনাফা পেতে পারেন।

এই ক্ষেত্রে সকল কন্ট্রোল আপনার নিজের হাতে আপনি যখন ইচ্ছা টাকা উত্তোলন করে নিতে পারেন।

প্রতি মাসে মুনাফার পরিমাণ আপনাকে এসএমএস এর মাধ্যমে জানানো হবে এবং আপনার একাউন্টে জমা করে দেয়া হবে।

 নগদ মোবাইল অ্যাপস

মোবাইল অ্যাপস, যা বর্তমান বিশ্বের অনেক কাজকে সহজ করে দিয়েছে।
তেমনি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবার একটি অ্যাপস রয়েছে।

Untitled-1-2


Nagad App Download । নগদ অ্যাপ ডাউনলোড ।
বিকাশ অ্যাপসের মত নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা অ্যাপ আপনারা বিদ্যুৎ বিল থেকে শুরু, অন লাইন কেনাকাটা,ক্যাশ আউট, ও অন্যান্য সকল কাজকে সহজ করে দিয়েছে।
নগদ একাউন্টের বিল পেমেন্ট করার সুবিধা
বিভিন্ন অনলাইন কেনাকাটায় এখন পে বিল সুবিধার ব্যাপক প্রসার হয়েছে।
বর্তমান অনলাইন কেনাকাটার বিল আপনার নগদ একাউন্ট থেকে প্রদান করতে পারবেন।

নগদ একাউন্টের আয়কর দেওয়ার সুবিধা

অনেকে আয়কর জমা দেয়া নিয়ে অনেকে বিড়ম্বনার শিকার হন। তবে এখন আপনি আপনার নগদ একাউন্ট থেকে আয়কর জমা দিতে পারবেন খুব সহজেই।

নগদ অ্যাপস থেকে সহজেই এখন আপনার আয়কর রিটার্ন জমা দিতে পারবেন নগদ একাউন্ট ব্যবহার করে।

images-2

নগদ একাউন্টের হেল্পলাইন সুবিধা

বর্তমানে বাংলাদেশের প্রতিটি সেবা খাতে হেলপ্লাইন ব্যবস্থা রয়েছে। 24/7 নগদ হেলপ্লাইন ব্যবস্থা নগদ গ্রাহককে আরো বেশি উৎসাহিত করছে নগদ ব্যবহারে।

images-1

যেকোনো সময় আপনার মোবাইল থেকে নগদ হেলপ্লাইনে কথা বলতে 16167 ডায়াল করুন এবং আপনার যেকোনো সমস্যার সমাধান নিয়ে নিন।

নগদ রেফার অফার

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেমে ব্যাপক পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। নগদে আকর্ষণীয় বেশ কিছু অফার প্রচলিত রয়েছে। আপনি যদি কাউকে নগদ একাউন্ট খোলাতে পারেন সেক্ষেত্রে আপনি বোনাস পাবেন। এটাকে নগদ রেফারেল বোনাস হিসেবে গণ্য করছে।
আপনি যদি ঘরে বসে ইনকাম করতে চান সে ক্ষেত্রে এই সুবিধাটি নিতে পারেন। আমরা আপনাকে দেখিয়ে দেবো কিভাবে রেফার সিস্টেম কাজ করে এবং আপনি কত টাকা কমিশন পাবেন।
নগদ অ্যাপ থেকে রেফার করে আপনি ভালো পরিমাণ এমাউন্ট ইনকাম করতে পারবেন। অনেকেই ঘরে বসে মাসে প্রচুর ইনকাম করছে নগদ অ্যাপ রেফার করে। ওয়েলকাম বোনাস হিসেবে ২০ টাকা পাবেন। কাউকে অ্যাপ ইনস্টল করাতে পারলে সে ক্ষেত্রে কমিশন তো থাকছেই।
নগদ থেকে রেফার করার জন্য আপনাকে ২১  টাকা পাঠাতে হবে। উক্ত ব্যক্তি ১৫ দিনের মধ্যে নগদ একাউন্ট খুললে সে ২৫ টাকা বোনাস পাবে। আর আপনি ৪২ টাকা পাবেন।
আর যদি কারো রেফার এ আপনি নগদ একাউন্ট খুলে থাকেন বা নগদ একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে থাকেন তাহলে আপনারা মোট ৪৬ টাকা বোনাস পাবেন। অনেকেই শুনে থাকবেন যে নগদ একাউন্ট খুললেই ১২০ টাকা করে বোনাস প্রদান করা হয়। আপনারা আজকে জানতে পারবেন কিভাবে আপনারা এই ১২০ টাকা বোনাস পাবেন নগদ একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করলে।

তবে এই অফারটি একটি নির্দিষ্ট সময়সীমার জন্য দেয়া হয়েছিল। ইতোমধ্যে সেই সময়সীমা পার হয়ে গিয়েছে। তবে আগামী মাসের মধ্যে আরও একটি অফার রয়েছে। নগদ একাউন্টের মাধ্যমে আপনারা এই অফার সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে অবগত হতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button